ক্ষমতা : ক্ষমতার একক – শক্তি ও ক্ষমতার মধ্যে পার্থক্য

ক্ষমতা কি

ক্ষমতার সংজ্ঞা বা ক্ষমতা কি

কার্য করার হারকে ক্ষমতা বলে। কোন বল এক সেকেন্ডে যতটুকু কার্য সম্পাদন করে তাই হলো ক্ষমতার পরিমাণ।

ধরি t সময়ে কোন বল w কাজ করে
অতএব 1 সেকেন্ডে বলটি w/t কার্য করে।
এখন ক্ষমতাকে P দ্বারা সূচিত করলে P = w/t, অর্থাৎ ক্ষমতা = কৃতকার্য/সময়

কার্য ও ক্ষমতার সম্পর্ক

কার্য ও ক্ষমতার সম্পর্ক নিম্নরূপ

একক সময়ে সম্পাদিত কার্যকে ক্ষমতা বলে।
অর্থাৎ, ক্ষমতা = কার্য/সময়
বা, কার্য = ক্ষমতা × সময়
কম সময়ে যদি কৃতকার্যের পরিমাণ বেশি হয় তাহলে ক্ষমতা বেশি হয়। মনে রাখা দরকার, ক্ষমতা কখনো কার্যের মোট পরিমাণের উপর নির্ভর করে না —- কত সময় ধরে ওই কার্য করা হলো তার ওপর নির্ভর করে।
একজন লোক দু সেকেন্ডে ৬০০ ফুট পাউন্ড কার্য করে, দ্বিতীয় জন 5 সেকেন্ডে ১২০০ ফুট পাউন্ড কার্য করে।
এখন দেখা যাক কার ক্ষমতা বেশি—
প্রথম ব্যক্তির ক্ষমতার হিসাব = ৬০০/২ = ৩০০ ফুট পাউন্ড/সেকেন্ড
দ্বিতীয় ব্যক্তির ক্ষমতা্র হিসাব = ১২০০/৫ = ২৪০ ফুট পাউন্ড/সেকেন্ড
সুতরাং প্রথমজনের ক্ষমতা বেশি।

ক্ষমতার একক

ক্ষমতার একক দু প্রকারের ১. পরম একক
২. অভিকর্ষীয় একক

ক্ষমতার পরম একক

১. সিজিএস পদ্ধতিতে ক্ষমতার একক আর্গ/সেকেন্ড
এক সেকেন্ডে এক আর্গ কার্য করা হলে, সেই ক্ষমতা হলো আর্গ/সেকেন্ড
২. এম কে এস পদ্ধতিতে ক্ষমতার একক ওয়াট।
এক সেকেন্ডে এক জুল কার্য করা হলে সেই ক্ষমতা কে বলা হয় এক ওয়াট
৩. এফপিএস পদ্ধতিতে ক্ষমতার একক ফুট পাউন্ডাল/সেকেন্ড
এক সেকেন্ডে এক ফুট পাউন্ডাল কার্য করা হলে সেই ক্ষমতা কে বলা হয় এক ফুট পাউন্ডাল/সেকেন্ড।

ক্ষমতার অভিকর্ষীয় একক

সিজিএস পদ্ধতিতে ক্ষমতার অভিকর্ষ একক গ্রাম সেমি/সেকেন্ড
1 গ্রাম ভরের বস্তুকে অভিকর্ষের বিরুদ্ধে এক সেকেন্ডে 1 সেন্টিমিটার উপরে ওঠাতে যে ক্ষমতার দরকার তাকে 1 গ্রাম সেমি / সেকেন্ড বলে।
এফ পি এস পদ্ধতিতে ক্ষমতার অভিকর্ষীয় একক ফুট পাউন্ড / সেকেন্ড।
এক পাউন্ড ভরের বস্তুকে অভিকর্ষের বিরুদ্ধে এক সেকেন্ডে 1 ফুট উপরে ওঠাতে যে ক্ষমতার প্রয়োজন তাকে এক ফুট পাউন্ড / সেকেন্ড বলে।
এমকেএস পদ্ধতিতে ক্ষমতার অভিকর্ষ একক কিলোগ্রাম মিটার / সেকেন্ড।
1 কিলোগ্রাম ভরের বস্তুকে অভিকর্ষের বিরুদ্ধে এক সেকেন্ডে 1 মিটার উপরে ওঠাতে যে ক্ষমতার দরকার তাকে কিলোগ্রাম মিটার সেকেন্ড বলে।

ওয়াট ও আর্গের মধ্যে সম্পর্ক

এক ওয়াট = 1 জুল/সেকেন্ড = 10⁷ আর্গ/সেকেন্ড

1000 ওয়াট =10¹⁰আর্গ/সেকেন্ড

অশ্বশক্তি বা হর্সপাওয়ার কি

এফপিএস পদ্ধতিতে ক্ষমতার ব্যবহারিক একককে হর্সপাওয়ার বা অশ্বশক্তি বলে। 550 পাউন্ড ভরের বস্তুকে অভিকর্ষের বিরুদ্ধে এক সেকেন্ডে এক ফুট খাড়াভাবে উপরে ওঠাতে যে ক্ষমতার দরকার হয় তাকে এক হর্সপাওয়ার বলে বা এক অশ্বশক্তি বলে।
অর্থাৎ 1 সেকেন্ডে 550 ফুট পাউন্ড কার্য করা হলে ক্ষমতা এক হর্সপাওয়ার হয়।
1 হর্সপাওয়ার =550 ফুড পাউন্ড / সেকেন্ড
= 55032 ফুটট পাউন্ডাল / সেকেন্ড = 550324.210⁵ আর্গ/সে
= 550324.2*10⁵ জুল / সেকেন্ড
= 746 ওয়াট

এক কিলোওয়াট= 1.34 হর্সপাওয়ার

শক্তি ও ক্ষমতার মধ্যে তুলনা

শক্তি ও ক্ষমতার মধ্যে তুলনা নিম্নে বর্ণিত হলো

শক্তিক্ষমতা
১. কোন বস্তুর কার্য করার সামর্থ্যকে শক্তি বলে।১. বস্তুর কার্যকর হারকে ক্ষমতা বলে।
২. মোট কৃতকার্য দ্বারা বস্তুর শক্তি পরিমাপ করা হয়, যেখানে সময়ের কোনো প্রশ্ন আসে না।২. একক সময়ে কৃতকার্য দ্বারা ক্ষমতা পরিমাপ করা হয়, সুতরাং এখানে সময়ের প্রশ্ন আসে।
৩. আন্তর্জাতিক পদ্ধতিতে শক্তির একক জুল।৩. আন্তর্জাতিক পদ্ধতিতে ক্ষমতার একক ওয়াট।
৪. শক্তি একটি স্কেলার রাশি।৪. এটি একটি স্কেলার রাশি।

এই ছিল শক্তি ও ক্ষমতার মধ্যে তুলনা

কার্য শক্তি ও ক্ষমতা এর মধ্যে সম্পর্ক

কার্য শক্তি ও ক্ষমতার মধ্যে সম্পর্ক নিম্নরূপ

১. কার্য হল শক্তির বহিঃপ্রকাশ। সম্পাদিত কার্য দ্বারা শক্তির পরিমাপ করা হয়। তাই কার্য এবং শক্তির একক একই কিন্তু ক্ষমতার একক ভিন্ন।
২. কার্য এবং শক্তির সঙ্গে সময়ের কোনো সম্পর্ক নেই কিন্তু ক্ষমতার সঙ্গে সময় এর সম্পর্ক আছে।
৩. একটি বস্তুর কার্য করার সামর্থ্য থাকলে বুঝতে হবে বস্তুটির মধ্যে কিছু পরিমাণ শক্তি জমা আছে। বস্তুটি যখন প্রকৃতই কার্যকরে তখনই তার ক্ষমতার কথা আসে।

অশ্বশক্তি বা হর্সপাওয়ার কি

এপিএস পদ্ধতিতে ক্ষমতার ব্যবহারিক একককে হর্সপাওয়ার বা অশ্বশক্তি বলে। 550 পাউন্ড ভরের বস্তুকে অভিকর্ষের বিরুদ্ধে এক সেকেন্ডে এক ফুট খাড়াভাবে উপরে ওঠাতে যে ক্ষমতার দরকার হয় তাকে এক হর্সপাওয়ার বলে বা এক অশ্বশক্তি বলে।

ওয়াট ও আর্গের মধ্যে সম্পর্ক কি

এক ওয়াট = 1 জুল/সেকেন্ড = 10⁷ আর্গ/সেকেন্ড
1000 ওয়াট =10¹⁰আর্গ/সেকেন্ড

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Comment